রাউজানের যুবক নিখোঁজের দেড়মাস পর মুক্তিপণ দাবি!


 শফিউল আলম, রাউজানবার্তা :

নিখোঁজ ডায়রি করার দেড়মাস পর রাউজানের মো. ইকবাল হোসেন রুবেল (২৫) নামের এক যুবককে ফেরৎ পেতে ৪০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিখোঁজ যুবকের বড় ভাইয়ের ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে এ মুক্তিপণ দাবি করছে একটি আইডি ব্যবহাকারী। ‘ইকবাল হোসেন রুবেল’ তাদের কাছে আছে, এর ভিত্তি কি? এমন প্রমাণ চাওয়ায় প্রমাণস্বরূপ নিখোঁজের একটি রুমে বসে থাকার ছবি এবং ভয়েজও পাঠিয়েছে মুক্তিপণ দাবিকারী ওই আইডি ব্যবহারী ব্যক্তি।

আজ শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগটি করেছেন রাউজান উপজেলার উরকিরচর বাকরআলী চৌধুরী বাড়ির মো. ইছাকের স্ত্রী বৃদ্ধা মোছাম্মৎ ফাতেমা বেগম। তিনি বলেন ‘আমার তিন পুত্র সন্তানের মধ্যে ২য় সন্তান ইকবাল হোসেন রুবেল পার্শ্ববর্তি উপজেলার মদুনাঘাট বাজারে পুস্প ইভেন্ট নামের দোকানে দৈনিক ভাড়ার ভিত্তিতে বসে বিকাশের লেনদেনের ব্যবসা করতো। সে শারীরিকভাবে কিছুটা অসুস্থও।

গত ২৪ জানুয়ারি দুপুর তিনটায় দোকান থেকে ওয়াজেদিয়া নয়ারহাটের উদ্যোশে রওনা হওয়ার পর থেকে নিখোঁজ হয়। পরদিন ২৫ জানুয়ারি হাটহাজারী থানায় সাধারণ ডায়েরী করি। এরপর দেড়মাসেরও বেশি সময় ধরে রুবেলের কোন খোঁজ পাইনি। গত ১৭ মার্চ থেকে আমার বড় ছেলে মো. সোহেলের ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে ‘সামির মাহমুদ’ নামের একটি ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার আইডি থেকে ৪০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এরপর ওই আইডি’র নাম পরিবর্তন করে ‘বিদায়’ নামের আইডি থেকেও মুক্তিপণ দাবি করে আসছে।’ রুবেলের মা ফাতেমা বেগম আরো বলেন ‘কেউ মিথ্যা মুক্তিপণ দাবি করছে কিনা এর সত্যতা যাচাইয়ের জন্য আমার বড় ছেলে মো. সোহেল ওই আইডি ব্যবহারকারীকে রুবেলের ছবি পাঠাতে ও তার কন্ঠ শুণতে চাইলে ‘ওই ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে একটি ছবি ও রুবেলের অস্পষ্ট কন্ঠের একটি ভয়েজ ম্যাসেজ পাঠায়। ছবিটিতে দেখা যায় রুবেল একটি পাকা ঘরে চুল আর গোঁফে ভরা ও খালি গায়ে প্যান্ট পড়ে নির্বাক মনে বসে আছে রুেেবল।’

মো. সোহেলের ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে ‘সামির’ ও ‘বিদায়’ নামের ফেসবুক ব্যবহারকারী ম্যাসেঞ্জারে এই বলে হুমকি দেয় যে, ছেলেটাকে দিয়ে মালের চালানের ব্যবসা করিয়ে ৪ গুন বেশি টাকা পাবো। ছেলেটা আমাদের নেশার জগতে থাকতে থাকতে এখন নেশা ছাড়া কিছু বুঝেনা, টাকা নিয়ে ছেলেটাকে ফেরৎ নাও, না হয় ছেলেটা যদি চালানে কখনো ধরা পড়ে, তাহলে ফ্রিতে নিয়ে যেও।’ এব্যাপারে মদুনাঘাট তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ইন্সফেক্টর মো. আব্দুল করিম বলেন ‘আমরা রুবেলের নিখোঁজের বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। এখনো সঠিক কিছু পাইনি। আমাদের পাশাপাশি রাউজান থানার পুলিশও এটি তদন্ত করছে। তবে যে আইডি থেকে টাকা চাওয়া হচ্ছে, তারা কখনো একেক অংকের টাকা দাবি করছে। বিষয়টি ‘রহস্যজনক’ও বলে মনে হচ্ছে।’

এদিকে ছেলেকে উদ্ধারে হাটহাজারী, রাউজান থানা পুলিশের কাছে কয়েকবার গিয়ে কোন প্রতিকার পাননি বলে জানান রহস্যজনকভাবে ‘নিখোঁজ’ রুবেলের মা ফাতেমা বেগম। রুবেলের বড় বোন নার্গিছ আকতার বলেন ‘প্রশাসন তৎপর না হলে আমার ভাইকে হত্যা বা তাকে দিয়ে মাদক পাচার কিংবা অপরাধ কাজ করাতে বাধ্য করতে পারে ওই চক্র।

এ ব্যাপারে রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্ল্রাহর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান ইকবাল হোসেন রুবেল নিখোজ হয় হাটাহাজারীর মদুনাঘাট এলাকা থেকে এ ব্যাপারে হাটহাজারী থানায় জিডি করা হয়েছে বিষয়টি হাটাহাজারী থানার আওতাধিন মদুনাঘাট পুলিশ তদন্ত ফাড়ির ইনচার্জ আবদুল করিমের কাছে তদন্দাধীন রয়েছে ।  

নিউজ ও বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন:

শফিউল আলম, প্রধান সম্পাদক

সাহেদুর রহমান মোরশেদ, সম্পাদক ও প্রকাশক

মোবাইল- ০১৮১৮-১১৭৪৭০

ইমেইল : raozan786@gmail.com

raozanbarta24.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *