রাউজানে নকল ঔষধ তৈয়ারীর কারখানায় অভিযান; তিনজনকে কারা দন্ড, জরিমানা আদায়

শফিউল আলম, রাউজানবার্তা :
অনুমোদনহীন, লাইসেন্স বিহীন সর্ব রোগের ঔষুধ, যৌন সমস্যার সমাধানে যৌন উত্তেজক নানান ধরনের ঔষুধ, ভারত চীন সহ বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ব্রান্ডের নামে তৈরী হচ্ছে যৌন উত্তেজকসহ ডায়াবেটিস চিকিৎসার ঔষুধ, নেই কোন কেমিস্ট, সাধারন কর্মচারীরাই তৈরী করছে সবধরনের ঔষুধ।

আজ ৭ এপ্রিল রবিবার সকাল দশটা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত রাউজান উপজেলার ১৩ নং নোয়াপাড়া ইউনিয়নের নোয়াপাড়া পথের হাটের পুর্ব পাশে ও সানজু কমিনিউটি সেন্টারের উত্তরে র‌্যাব ৭ এর একটি দল রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যজিষ্ট্রেট শামীম হোসেন রেজা ও রাউজান উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি এহসান মুরাদের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে এ দৃশ্য দেখতে পায়।

ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চলাকালে নোয়াপাড়া পথের হাটের পুর্ব পাশে ঔষধ তৈয়ারীর কারখানা, নোয়াপাড়া ভ্রাম্বন হাটের পাশে নকল হারবাল ঔষধ তৈয়ারীর কারখানার মালিক আবদুল হাকিম চৌধুরীর বাংলো ও আবদুল হাকিম চৌধুরীর বাড়ী রাউজানের বাগোয়ান ইউনিয়নের পাচঁখাইন এলাকা থেকে বিপুল পরিমান নকল হারবাল ঔষধ উদ্বার করে।

আবদুল হাকিম চৌধুরী দীঘদিন ধরে রাউজানের নোয়াপাড়ায় ও তার বাংলোতে, বাড়ীতে নকল হারবাল ঔষধ তেয়ারী করে আসছে। নকল হারবাল ঔষধ গুলি বিক্রয় করে এলাকার মানুষ থেকে প্রতারনা করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিয়ে নোয়াপাড়া, বাড়ীর পাশে, চট্টগ্রাম নগরীতে বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি গড়ে তোলে। রাউজানের নোয়াপাড় পথের হাটে দেশ হারবাল নামের একটি হারবাল চিকিৎসালয় গড়ে তোলে। দেশ হারবালের চিকিৎসালয় নাম দিয়ে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা ও নকল তৈয়ারী হারবাল ঔষধ বিক্রয় করে প্রতারনা করে আসছে। গত তিন বৎসর পুর্বে আবদুল হাকিম চৌধুরীকে একবার র‌্যাব আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

আজ ৭ এপ্রিল রবিবার সকাল দশটা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত আবদুল হাকিম চৌধুরীর মালিকানাধীন নকল ঔষধ তৈয়ারীর কারখানায় ভ্রাম্যমান আদালত র‌্যাব ৭ এর কর্মকর্তা মাসকুর রহমান, কাজী তারেক আজিজ ও চট্টগ্রাম জেলা ঔষধ প্রশাসনের কর্মূকর্তা কামরুল হাসানের নেতৃত্বে র‌্যাবের সদস্যদের নিয়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যজিষ্ট্রেট শামীম হোসেন রেজা ও রাউজান উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি এহসান মুরাদ অভিযাণ পরিচালনা করে ।

ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যজিষ্ট্রেট রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজা বলেন অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নকল হারবাল ঔষধ উদ্বার করার পর নকল ঔষধ গুলো আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয় । নকল ঔষধ তৈয়ারীর কারখানা থেকে ৩৯ জন কর্মচারীকে আটক করা হয়। আটক কর্মচারী ও মালিক থেকে ৫লাখ ১৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।


যৌন উত্তেজক ঔষুধ তৈরী ও সারা দেশে এমনকি দেশের বাইরে বিপননের মূল প্রতিষ্ঠান টি ; ১০২ টি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সার্বক্ষনিক অর্ডার নিয়ে অসংখ্য বিকাশ নম্বরের মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে, অভিযান চলাকালে জব্দকৃত ১০২টি মোবাইল

নকল ঔষধ তৈয়ারীর কারখানা থেকে আটক তিনজন কর্মচারীকে ছয়মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে তাদের চট্টগ্রাম জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়। দন্ডপ্রাাপ্ত কর্মচারীরা হলেন পটিয়ার আবুল খায়েরের পুত্র হাসান মুরাদ (২৩) রাউজানের ডাবুয়ার জগ্ননাথ হাট এলাকার স্বপন করের পুত্র নয়ন কর (২১) রাউজানের বাগোয়ান ইউনিয়নের পাচঁখাইন মাঝি পাড়া এলাকার বদিউল আলমের পুত্র ইমরান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *