রাউজানে গাছ থেকে পরে যুবকের মৃত্যু

এম বেলাল উদ্দিন, রাউজানবার্তা :

রাউজানে গাছ থেকে পরে আহত যুবক আব্দু রহমান (২৮) চিকিত্সাধীন অবস্থায় ১০জুন সোমবার মারা গেছেন।

জানা যায়, একদম ছোট কালে চাঁদপুর থেকে এসে ঠাই হয়েছিল গরিবের বন্ধু রাউজানের ডাবুয়ার জসিম মেম্বারের ঘরে।থাকত বাড়ী আর জসিমের ডেকোরেটর দোকানে। প্রায় ২০বছর আগে মা বাবা ভাই ভ্রাদার ছেড়ে রাউজানে এসে জসিম মেম্বারের আদর স্মেহে বড় হতে থাকে সে। ৮বছরের শিশু রহমানকে জসিম পিতা-মাতার মত চায়া দিয়ে বড় করতে থাকেন।

লালন পালন সহ যাবতীয় খরচ বহন করে করে নিজের সন্তানের মত দেখা শুনা করেন জসিম। প্রতিটি ভাল কাজে জাপিয়ে পড়া জসিম মেম্বার নিজ খরচে রহমানকে ডুবাইতেও পাটান একবার।

আড়াই বছর প্রবাসে থেকে আবারো চলে আসেন জসিমের কাছে।সকলের কাছে অতি প্রিয় আব্দু রহমানের বয়স বর্তমান (২৮)। বিবাহ করেছেন হলদিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়াডের হিজ্জেপাড়া থেকে।৬বছর বয়সি এক কন্যা আর ২বছর বয়সি শিশু  সন্তান রেখে পরপারে চলে যাওয়া সহজে মেনে নিতে পারছেনা আমিরহাট সহ হলদিয়া ডাবুয়ার তার পরিচিত হাজারো মানুষ।

সকলেই তাকে আদর করে বলতেন রহমান কেন আছস, ঈদের বেরানী চলেননি? স্থানিয়রা জানান ঈদের নামাজ, ঈদের ঘুরোঘুরি সব কিছু করেছে বুধবার থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত। 

কে জানত শনিবার দুপুরে জাম পাড়তে গাছে উঠে তার জীবন প্রদিপ নিভে যাবে! সেদিন দুপুরে গর্জনিয়া এলাকায় একটি জামগাছে জাম পাড়তে উঠে গাছ থেকে অসাবধনবশত নিছে পড়ে যায় রহমান।স্থানিয়রা উদ্দার করে নিয়ে যায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে ৫ম তালার ২৮নং ওয়াডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোর সকালে মারা যায় রহমান।

লাশ নিয়ে আসা হয় হলদিয়ায়। সেখানে সকলেই দেখারপর লাশ নিয়ে যাওয়া হয় জম্মভূমি চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার বলাখালী ইউনিয়নের কেপাড়ী বাড়ীতে। সেখানে জানাযা শেষে দাফন করা হয় তাকে।

তারপিতা গোলাম মোস্তফা ছেলের করুন মৃত্যুতে বাকরুদ্ব । রহমানকে বড় করে লালন পালন করা জসিম মেম্বার ফোনে চাঁদপুর থেকে কেঁদে কেঁদে বলেন আমার ছেলে রহমানকে দাফন করতে চাঁদপুরে নিয়ে এসেছি। আমি কিছু বলতে পারছিনা আজ আমার রহমান আমাকে ছেড়ে চলে গেল।

নিউজ ও বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন:

শফিউল আলম, প্রধান সম্পাদক

সাহেদুর রহমান মোরশেদ, সম্পাদক ও প্রকাশক

মোবাইল- ০১৮১৮-১১৭৪৭০

ইমেইল : raozan786@gmail.com

raozanbarta24. com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*