ভারী বর্ষনে রাউজানে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি : বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন, ফসলী জমি, বসতবাড়ী ও সড়কের ক্ষতি

শফিউল আলম রাউজানবার্তা : 

ভারী বর্ষন ও পাহাড়ী ঢলের শ্রোতে সর্তাখাল ও ডাবুয়া খালের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে। সর্তার খাল ও ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন দিয়ে পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানি প্রবেশ করে শ্রোতের পানিতে রাউজানের হলদিয়া বইজ্যার হাট, উত্তর সর্তা, গর্জনিয়া, রাউজানের ডাবুয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ডাবুয়া, পশ্চিম ডাবুয়া সেন বাড়ী, নোয়াজিশপুর ইউনিয়নের ফতেহ নগর মিলনা মাষ্টারের ঘাটা, নতুন হাট, চিকদাইর ইউনিয়নের দক্ষিন সর্তা সৈয়দ আলী চৌকিদার বাড়ী, যুগিঘাটা. দক্ষিন সর্তা, গহিরা ইউনিয়নের দলই নগর, পশ্চিম গহিরা, এলাকার শতাধিক বসত ঘর ব্যাপক ভাবে ক্ষতি হয়। 

সর্তা খালের ভাঙ্গনের হুমকির মুখে চিকদাইর ইউনিয়ন পরিষদ ভবন ও হক বাজার সড়ক। হলদিয়া ইউনিয়নের জানিপথর, রাধামাধবপুর, ডাবুয়া ইউনিয়নের রোয়াইঙ্গা বিল, রামনাথ পাড়া, কেউকদাইর, কান্দি পাড়া, খামার বাড়ী, চিকদাইর ইউনিয়নের সন্দ্বীপ পাড়া, চিকদাইর, পাঠান পাড়া, রাউজান পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সুলতানপুর ক্ষেত্রপাল মন্দির, ক্ষেত্রপাল মন্দিরের পাশে ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন দিয়ে পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানির শ্রোতে ক্ষেত্রপাল মন্দির সড়ক, চিকদাইর সাহেব বাড়ী সড়ক, চিকদাইর পাঠান পাড়া সড়ক, বণিক পাড়া সড়ক, জগৎ ধর সড়কের কয়েকটি স্থানে সড়ক বিধস্ত হয়ে যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা ।

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা যায় রাউজান পৌরসভার সুলতানপুর ক্ষেত্রপাল মন্দিরের পাশে ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন ও ক্ষেত্রপাল মন্দির সড়ক বিধস্ত হয়ে ডাবুয়া ভালের ভাঙ্গন দিয়ে প্রবাহিত পানির শ্রোতে কৃষ্ণ নাথ বাপ্পা চক্রবর্তী সহ তিনটি পরিবারের বসতঘরের মধ্যে পানি প্রবেশ করে। পানির শ্রোতে তিনটি পরিবারের বসতঘর ব্যাপক ক্ষতি হয় । 

তিনটি পরিবারের সদস্যরা পাশ্ববর্তি মন্দিরের মধ্যে পরিবার পরিজন নিয়ে আশ্রয় নিয়েছে।একই এলাকায় উত্তম রায়ের চারটি প্লোটি খামার পানিতে ডুবে যায়। 

ডাবুয়া খালের ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে দেখতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আসে নাই বলে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা জানান। 

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা যায় সরতের দোকান থেকে শুরু হওয়া চিকদাইর পাঠান পাড়া সড়কের কয়েকটি স্থানে সড়ক বিধস্ত হয়ে সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা ।চিকদাইর সাহেব বাড়ী সড়কটি বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয় সড়কটির একাংশ পানিতে ডুবে রয়েছে। 

চিকদাইর ইউনিয়নের দক্ষিন সর্তা এলাকার সৈয়দ আলী চৌকিদার বাড়ী সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা যায় বাড়ীর বাসিন্দ্বা আলী আহম্মদ, সেলিম উদ্দিনের বসতঘরের রান্নাঘর সহ বসত ভিঠার এখাংশ সর্তা খালের মধ্যে বিলিন হয়ে গেছে ।সৈয়দ আলী চৌকিদার বাড়ীর ২০টি পরিবারের বসতবাড়ী হুমকির মুখে রয়েছে । চিকদাইর নোয়াজিশপুর সড়কের একাংশ নোয়াজিশপুর নতুন হাটের পুর্বে সর্তা খালে বিলিন হয়ে পড়েছে। 

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে রাউজানের পশ্চিম ডাবুয়া এলাকায় গত বর্ষার মৌসুমে সর্তা খালের বেড়ী বাধ ভাঙ্গন এলাকায় বালু বস্তা ও মাটি দিয়ে ভাঙ্গন কবলিত এলাকার দেওয়া বেড়ী বাধ পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানিতে দেবে গেছে। 

স্থানীয় ইউপি মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম, মিটু শীল জানান গত ১১ জুলাই ভারী বর্ষন ও পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানির শ্রোতে বেড়ী বাধ দেবে গেলে এলাকার লোকজন সহ বালুর বস্তা ও মাটি দিয়ে বেড়ী বাধ ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করে। 

আজ ১২ জুলাই শুক্রবার সকালে পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি দল, ডাবুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান চৌধুরী ও চিকদাইর ইউনিয়নের চেয়ারম্যোন প্রিয়তোষ চৌধুরী সহ পশ্চিম ডাবুয়া বেড়ী বাধ সহ সর্তা খাল ও ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন । 

সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা যায় নোয়াজিশপুর ইউনিয়নের ফতেহ নগর মিলন মাস্টারের ঘাটা এলাকায় সর্ত খালের ভাঙ্গন দিয়ে পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানি প্রবেশ করে ৩০টি পরিবারের বসতঘর ও ফসলী জমির ব্যাপক ক্ষতি হয় । মিলন মাস্টারের ঘাটা এলাকার বাসিনিদ্বা শাহজাজাহান জানান, সর্তা খালের ভাঙ্গনে ফতেহ নগর মিলনা মাস্টারের ঘাটা এলাকায় মিলন মাস্ট্রারের বাড়ীর ৩০টি পরিবারের বসত ঘর সহ বসত ভিটা সর্তা খালের মধ্যে বিলিন হয়ে যায় । সর্তা খালের ভাঙ্গনে বসতবাড়ী হারিয়ে ৩০টি পরিবারের সদস্যরা রাঙ্গামাটি ও ভারতে চলে যায় । মিলন মাস্টারের বাড়ীতে ৮টি পরিবারের বসত ঘর রয়েছে ৮টি পরিবারের বসতঘর যে কোন সময়ে সর্তার খালের মধ্যে বিলিন হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে । 

রাউজানের পশ্চিম ডাবুয়া এলাকার স্থানীয় মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, রাউজানের পশ্চিম ডাবুয়ায় সর্তা খালের ভাঙ্গনে দোস্ত মোহাম্মদ চৌধুরী বাড়ী, পাল পাড়া, আদাগাজির বাড়ীর শতাধিক পরিবারের বসত ঘর পুর্বে খালের মধ্যে বিলিন হয়ে গেছে । খালের ভাঙ্গনে বসতবাড়ী হারানো পরিবারের সদস্যরা রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় ও চট্টগ্রাম শহরে নতুন করে জায়গা ক্রয় করে ঘরবাড়ী নির্মান করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসাবাস করে আসছে । রাউজানের পশ্চিম ডাবুয়ায় আরো শতাধিক পরিবারের বসতঘর হুমকির মুখে রয়েছে । রাউজানের পশ্চিম ডাবুয়া এলাকায় সর্তার খালের বেড়ী বাধ ধসে যাওয়া স্থানে জরুরি ভিত্তিত্বে পাথরের বাধ নির্মান করে সর্তার খালের ভাঙ্গন থেকে এলাকার বাসিন্দাদের রক্ষা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করেন স্থানীয় মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম সহ এলাকা বাসী । 

চিকদাইর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী জানান গত ১০ জুলাই ও ১১ জুলাই ভারী বর্ষন ও পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানিতে চিকদাইর ইউনিয়নের ৫টি স্থানে ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়ে এলাকার বাসি›দ্বাদের বসতবাড়ী ফসলী জমি ও সড়কের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় । সর্তার খালের ভাঙ্গনে চিকদাইর হক বাজারের সড়ক ক্ষতিগ্রস্থ হয় । চিকদাইর ইউনিয়ন পরিষদ ভবন সর্তার খালের ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে ।  

এ ব্যাপারে রাউজান উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার নিয়াজ মোরশেদ বলেন ভারী বর্ষন ও পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পনিতে সর্তা খাল ও ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের জন্য বিধস্থ সড়ক মেরামতের জন্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে বরাদ্ব চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়। পশ্চিম ডাবুয়া এলাকায় সর্তা খালের বেড়ী বাধ ধসে গেলে ধসে যাওয়া বেড়ী বাধ বালুর বস্তা ও মাটি দিয়ে মেরামত করা হয় ।  

গত ১০ ও ১১ জুলাই ভোররাত থেকে ভারী বর্ষন হলে রাউজানের সর্ত্খাালও ডাবুয়া খালের ভাঙ্গন দিয়ে পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানি প্রবেশ করে রাউজানের দক্ষিন হিংগলা, ঢেউয়া পাড়া, হাজী পাড়া, শারীপ পাড়া, সুলতানপুর ছিটিয়া পাড়া, বণিক পাড়া, সন্দিপ পাড়া, সুলতানপুর কাজী পাড়া, পশ্চিম সুলতানপুর, চিকদাইর ইউনিয়নের দক্ষিন সর্তা গহিরা ইউনিয়নের দলই নগর, নোয়াজিশপুর ইউনিয়নের ফতেহ নগর, নদীম পুর, পশ্চিম ডাবুয়া লাঠিছড়ি, রাধামাধবপুর, গহিরা মোবারক খীল, পশ্চিম গহিরা, বিনাজুরী ইউনিয়নের লেলাঙ্গারা, জাম্বইন, ইদিলপুর, পশ্চিম বিনাজুরী, রাউজান ইউনিয়নের কেউটিয়া খলিলাবাদ, মঙ্গল খালী, পশ্চিম রাউজান, কদলপুর ইউনিয়নের পশ্চিম কদলপুর, পুর্ব গুজরা ইউনিয়নের উত্তর গুজরা, আধারমানিক, বড়ঠাকুর পাড়া, হোয়ারা পাড়া, পশ্চিম আধার  মানিক, পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের কাগতিয়া ডোমখালী, বদু মুন্সি পাড়া মীরধার পাড়া, সরকার পাড়া, উরকির চর ইউনিয়নের মীরা পাড়া, উরকিরচর, খলিফার ঘোনা, আবুর খীল, হারপাড়া, সার্কদা, নোয়াপাড়া ইউনিয়নের পটিয়াি পাড়া, কচুখাইন, মোকামী পাড়া, উভলং, বাগোয়ান ইউনিয়নের গশ্চি, পাচখাইন, কোয়ে পাড়া খেলার ঘাট, পাহাড়তলী ইউনিয়নের  খৈয়া খালী, বদু পাড়া দেওয়ান পুর, মহামুনি এলকা প্লবিত হয় । কর্ষফুলী নদী ও হালদা নদী দিয়ে অীাসা পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানির পাশাপাশি জোয়ারের পানিতে এলাকার বসতবাড়ী, ফসলী জমি জনগনের চলাচলের কিছু সড়ক পানিতে ডুবে গেছে । 

১২ জুলাই ভোর রাতে রাউজানের উচু এলাকা থেকে পানি নেমে গেলে ও রাউজানের নিম্মঞ্চল পানিতে ডুবে থাকতে দেখা যায় ।

নিউজ ও বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন:

শফিউল আলম, প্রধান সম্পাদক

সাহেদুর রহমান মোরশেদ, সম্পাদক ও প্রকাশক

মোবাইল- ০১৮১৮-১১৭৪৭০

ইমেইল : raozan786@gmail.com

raozanbarta24. com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*