রাউজানের অবাধে বালু উত্তোলন সর্তার ভাঙ্গন বৃদ্বি : শতাধিক পরিবারের বসতবাড়ী হুমকির মুখে

রাউজানের অবাধে বালু উত্তোলন সর্তার ভাঙ্গন বৃদ্বি : শতাধিক পরিবারের বসতবাড়ী হুমকির মুখে

শফ্উিল আলম, রাউজানবার্তা :

সর্তা খালে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে উত্তর হলদিয়া বড়ুয়া পাড়া সওদাগর বাড়ী, আজিজুর রহমানের বাড়ী বাড়ই পাড়া এলাকার অর্ধ শতাধিক পরিবারের বসতবাড়ী ও হলদিয়া বড়ুয়া পাড়া সড়ক সর্তা খালে বিলিন আরো শতধিক পরিবারের বসতঘর হুমকির মুখে পড়েছে।

হলদিয়া ভিলেজে রোডটি বিভিন্ন স্থানে সর্তা খালের মধ্যে ধসে পড়েছে। সর্তার খাল খাল থেকে অবৈধবাবে উত্তোলন করা বালু প্রতিদিন ট্রাক ও জীপযোগে হলদিয়া ভিলেজ রোড দিয়ে পরিবহন করায় হলদিয়া ভিলেজ রোডের বিভিন্ন স্থানে গর্ত সৃষ্টি হয়ে সড়কটি যানবাহন চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। ((((বিজ্ঞপ্তি- মোবাইলের যে কোন সমস্যা, মেরামত/ মোবাইল ফ্লাশ/ ভার্সন আপডেট / কান্ট্রি লক, জিমেইল লক, এমআই লক, আই ফোনের আইক্লাউড লক সহ যেকোন লক খুলতে যোগাযোগ করুন- ১। রহমানিয়া এন্টারপ্রাইজ সেইলস্ & সার্ভিসিং, ভারতশ্বরী প্লাজা, পথেরহাট, নোয়াপাড়া, রাউজান, চট্টগ্রাম।মোবাইল-01719-117470 ))) ২. মোবাইল থেরাপী, শাহ আমানত সিটি কর্পোরেশন মার্কেট, দোকান নং-৬৯, ২য় তলা, জুবলী রোড, আমতল, চট্টগ্রাম। মোবাইল-01719-117470 )))

বালু খোকোদের অত্যাচার ও নির্যাতনে হলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর হলদিয়া বড়ুয়া পাড়া, কুলাল পাড়া, সওদাগর বাড়ী, আজিজুর রহমান বাড়ী, রাড়ই পাড়া, অমতইল্যা টিলা, গজর্নিয়া, এলাকার মানুষ অতিষ্ট হয়ে উঠেছে।

বালুখোকোরা সর্তার খাল থেকে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করার ফলে সর্তার খালের ভাঙ্গন বৃদ্বি পেয়ে এলাকার বাসিন্দ্বাদের বসতবাড়ী, ফসলী জমি জনগনের চলাচলের সড়ক সর্তার খালে বিলিন হলেও কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা।

এলাকার বাসিন্দ্বারা কেউ প্রতিবাদ করলে তাদেরকে বালুখোকো ও বালুখোকোদের লালিত সন্ত্রাসীরা মারধর ও নির্যাতন করে বলে ভুক্তভোগি পরিবারের সদস্যার অভিযোগ করেন। সর্তার খাল থেকে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার পর ট্রাক ও জীপ যোগে প্রতিদিন শত শত ট্রাক ও জীপ ভর্তি বালু হলদিয়া ভিলেজ রোড দিয়ে পরিবহন করায় হলদিয়া ভিলেজ রোডের বেহাল অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কয়েক দপে হলদিয়া ভিলেজ রোডের উন্নয়ন কাজ করলেও বালু ভর্তি ট্রাক ও জীপ চলাচলের ফলে সড়কটি হলদিয়া আমির হাটের থেকে হলদিয়া হচ্চার ঘাট পর্যন্ত বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে।

হলদিয়া ইউনিয়নের আমির হাট এলাকায় অবস্থিত এয়াসিন শাহ কলেজ, এয়াসিন শাহ উচ্চ বিদ্যালয়, গর্জনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, গর্জনিয়া ফাজিল মার্দ্রাসা, হলদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, হলদিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, হলদিয়া সাজেদা কবির চৌধুরী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন হলদিয়া ভিলেজ রোড দিয়ে কাদা দিয়ে পায়ে হেটে চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে চলাচল করছে। এছাড়া ও আমির হাট বাজার, বাইজ্যার হাট, হলদিয়া রাবার বাগানে প্রতিদিন শত শত মানুষ হলদিয়া ভিলেজ রোড দিয়ে চরম দুভোর্গের মধ্যে দিয়ে চলাচল করছে ।

হলদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের জনগনের পক্ষ থেকে ২শত জন এলাকার সাধারন মানুষ ৬ অক্টোবর রবিবার সর্তার খাল থেকে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্দ্ব করার আবেদন জানিয়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগে উল্লেখ করা হয় হলদিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি গত কয়েক বৎসর ধরে সর্তার খালে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে । সর্তার খালে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে বালু উত্তোলন করায় হলদিয়া বড়ুয়া পাড়া, সওদাগর বাড়ী, আজিজুর রহমান বাড়ী, বাড়ই পাড়া, কুলাল পাড়া এলাকার অর্ধ শতাধিক পরিবারের বসতঘর সর্তা খালে বিলিন হয়ে গেছে । আরো শতাধিক পরিবারের বসতবাড়ী সর্ত্রা খালে বিলিন হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে । বালু উত্তোলনের ফলে সর্থার খালের ভাঙ্গন বৃদ্বি পেয়ে বসতবাড়ী হারানো পরিবারের অনেক সদস্য বাপদাদার বসত ভিটা হারিয়ে ভাড়া বাসায় ও অনত্র ঘরবাড়ী নির্মান করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন । সর্তার খালের পাওয়ার পাম্প বসিয়ে বালু উত্তোলন করায় হলদিয়া বড়ুয়া পাড়া সড়কের পুরো অংশ সর্তার খালে বিলিন হয়ে গেছে । হলদিয়া ভিলেজ রোড ও কয়েকটি স্থানে খালের মধ্যে ধসে পড়েছে। হলদিয়া সাজেদা কবির চৌধুরী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাওলানা রমিজ উদ্দিনের বাড়ী হয়ে হচ্ছার ঘাট যাওয়ার একমাত্র সড়কটি খালের মধ্যে বিলিন হয়ে পড়েছে।

এলাকার বাসিন্দারা আরো অভিযোগ করে বলেন, এলাকার লোকজন অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করতে বাধা দিলে বালুখোকোরা এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের ১৭ জন যুবককে আসামী করে মিথ্যা মামলা দেয়। ক্ষতিগ্রস্থ জনগনকে আরো মামলা দেওয়ার হুমকি দিয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তি সর্তার খাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে বলে এলাকার বসতবাড়ী হারানো পরিবারের সদস্যরা জানান ।

এ ব্যাপারে হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, এলাকার বাসিন্দ্বাদের ক্ষতি করে কাউকে সর্তার খাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করতে দেওয়া যাবেনা। কেউ এলাকার বাসিন্দ্বাদের ক্ষতি করে সর্তার খাল থেকে বালু উত্তোলন করলে তাদের কঠোর হস্তে দমন করার জন্য রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপ কামণা করেন হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম।

রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন পুর্বে কয়েক দিন আগে হলদিয়া এলাকায় অভিযাণ চালিয়ে সর্তা খাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার সময়ে বালু উত্তোলনের সরঞ্জাম ধংস করেছি। হলদিয়া এলাকার বাসিন্দ্বাদের অভিযোগ পেয়েছি সরেজমিনে গিয়ে সর্তার খাল থেকে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে বালু উত্তোলন কারীদের বিরুদ্বে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*