রাউজানে হালদা নদীতে তিনটি, সর্তা খালে একটি সেতু সহ চারটি সেতু নির্মানের প্রকল্প চুড়ান্ত পর্যায়ে

চারটি সেতু নির্মান করা হলে রাউজান ফটিকছড়ি, রাউজান হাটহাজারী, রাউজানের কচুখাইন নগরীর মোহরা এলাকার জনগনের চলাচলের পথ সুগম হবে। হাজার হাজার মানুষ তার সুফল ভোগ করবে

শফিউল আলম, রাউজানবার্তা :

 হালদা নদীতে তিনটি সর্তা খালে একটি সেতু সহ চারটি সেতু নির্মানের প্রকল্প চুড়ান্ত পর্যায়ে চারটি সেতু নির্মান করা হলে রাউজান ফটিকছড়ি, রাউজান হাটহাজারী, রাউজানের কচুখাইন নগরীর মোহরা এলাকার জনগনের চলাচলের পথ সুগম হবে । হাজার হাজার মানুষ তার সুফল ভোগ করবে। রাউজান উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের শেষ সীমানায় সর্তা খাল, সর্তা খালের অপর পাড়ে ফটিকছড়ি উপজেলার ক্ষিরাম । হলদিয়া ইউনিয়নের শেষ সীমানায় সর্তা খাল, সর্তা খালের অপর পাড়ে ফটিকছড়ি উপজেলার ক্ষিরাম এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হচ্ছার ঘাট এলাকায় সর্তা খালের পানিতে নেমে প্রতিদিন রাউজান ফটিকছড়ির হাজার হাজার মানুষ  ও স্কুল কলেজ, মার্দ্রসার শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা চরম দুভোর্গে মধ্যে দিয়ে চলাচল করে। শুস্ক মৌসুমে সর্তা খানের পানি দিয়ে পরণের কাপড় ভিজিয়ে দুই উপজেলার বাসিন্দ্বারা চলাচল করলে ও বর্ষার মৌসুমে হচ্ছার ঘাট এলাকায় নৌকা দিয়ে খাল পাড় হতে হয় । প্রবল বর্ষন হলে পাহাড়ী ঢলের শ্রোতের পানি সর্তা খাল দিয়ে প্রবাহিত হলে দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষ খাল দিয়ে চলাচল করতে পারেনা । জরুরি কাজে ও অসুস্থ রোগীদেও নিয়ে ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুর, আজাদী বাজার হয়ে রাউজান ও চট্টগ্রাম শহরে যেতে হয় ।  

রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির একান্ত প্রচেষ্টায় হচ্ছার ঘাট এলাকায় ১শত ১০ মিটার, ৩শত ৬০ ফুট দৈর্ঘ ২৪ফুট প্রশস্ত সর্তার খালের উপর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মান করার প্রকল্প নেওয়া হয়। কয়েকদপে সেতু নির্মানের স্থান পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরেরর উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা। গত ২১ অক্টোবর সর্ব শেষ সেতু নির্মান কাজের প্রক্রিয়া যাচাই করার জন্য হচ্ছার ঘাট এলাকা পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দীর্ঘ সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক এম এবাদত আলী।

রাউজান উপজেলার নোয়াজিশপুর ইউনিয়নের পশ্চিম নদীম পুর এলাকা ও হাটহাজারীর লাঙ্গলমোড়া, ফটিকছড়ির তেলপারই এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হালদা নদী। পশ্চিম নদীম পুর এলাকা ও হাটহাজারীর লাঙ্গলমোড়া, ফটিকছড়ির তেলপারই এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হালদা নদীর উপর কোন সেতু না থাকায় তিন উপজেলার হাজার হাজার মানুষ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা হালদা নদীর উপর বাশের খুটি দিয়ে খুটির উপর বাশের চালা বসিয়ে হালদা নদী পার হয়। রাউজান ,ফটিকছড়ি, হাটহাজারী উপজেলার হাজার হাজার মানুষের চরম দুভোর্গ লাঘব করার জন্য রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির একান্ত প্রচেষ্টায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে হালদা নদীর উপর ৩শত ৯৫ পুট দৈর্ঘ ২৪ ফুট প্রশস্থ  সেতু নির্মান করার প্রকল্প নেওয়া হয়। সেতু নির্মান কাজের সর্ব শেষ প্রক্রিয়া যাছাই করার জন্য হালদা নদীর পশ্চিম নদীমপুর এলাকা পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দীর্ঘ সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক এম এবাদত আলী গত ২১ অক্টোবর সোমবার দুপুরে। 

রাউজান পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের মোবারক খীল ও হাটহাজারী উপজেলার গড়দুয়ারা এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হালদা নদীর সিপাহির ঘাট । রাউজান পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের মোবারক খীল ও হাটহাজারী উপজেলার গড়দুয়ারা এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হালদা নদীর সিপাহির ঘাট এলাকায় হালদা নদীর উপর কোন সেতু না থাকায় নৌকা দিয়ে পার হয়ে রাউজান হাটহাজারী উপজেলার হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন চলাচল করে।রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির একান্ত প্রচেষ্টায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৬৫শত কোটি টাকা ব্যয়ে হালদা নদীর উপর ৩শত ৯৫ পুট দৈর্ঘ ২৪ ফুট প্রশস্থ  সেতু নির্মান করার প্রকল্প নেওয়া হয়। সেতু নির্মান কাজের সর্ব শেষ প্রক্রিয়া যাছাই করার জন্য হালদা নদীর সিপাহির ঘাট এলাকা পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দীর্ঘ সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক এম এবাদত আলী গত ২১ অক্টোবর সোমবার দুপুরে। 

রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়নের কচুখাইন ও চট্টগ্রাম নগরীর মোহরা এলাকার মধ্যবর্তী স্থানে হালদা নদী । হালদা নদীর উপর কোন সেতু না থাকায় রাউজানের নোয়াপাড়া ইউনিয়নের কচুখাইন, ও নগরীর মোহরা এলাকার হাজার হাজার মানুষ স্কুল কলেজ, মার্দ্রসার শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা প্রতিদিন নৌকা দিয়ে হালদা নদী পার হয়ে চলাচল করতে হয় । রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির একান্ত প্রচেষ্টায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৫শত কোটি টাকা ব্যয়ে হালদা নদীর উপর ১হাজার ৩০ফুট দৈর্ঘ ২৪ ফুট প্রশস্থ  সেতু নির্মান করার প্রকল্প নেওয়া হয়। সেতু নির্মান কাজের সর্ব শেষ প্রক্রিয়া যাছাই করার জন্য হালদা নদীর রাউজানের নোয়াপাড়া ইউনিয়নের কচুখাইন এলাকা পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দীর্ঘ সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক এম এবাদত আলী গত ২১ অক্টোবর সোমবার বিকালে ।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় দীর্ঘ সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক এম এবাদত আলী রাউজানের হচ্ছার ঘাট সর্তা খালের উপর সেতুর নির্মান কাজ, পশ্চিম নদীমপুর, সিপাহির ঘাট, কচুখাইন এলাকায় হালদা নদীর উপর সেতুর নির্মান কাজের যাছাই করার সময়ে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা প্রকৌশলী আবুল কালাম, সাবেক প্রকৌশলী কামাল উদ্দিন, উপ সহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান, ফরিদ আহম্মদ, চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, সৌরভ উদ্দিন, সরোয়ার্দি সিকদার, রাউজান পৌরসভার প্যনেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, নোয়াপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দিদারুল আলম, আওয়ামী লীগ নেতা রুনু ভট্টচার্য্য, মুসলিম উদ্দিন চৌধুরী, বাবুল মিয়া মেম্বার । রাউজান উপজেলা প্রকৌশলী আবুল কালাম বলেন রাউজানের  হচ্ছার ঘাট এলাকায় সর্তার খালের উপর ও  পশ্চিম নদীম পুর, সিপাহির ঘাট, কচুখাইন এলাকায় হালদা নদীর উপর তিনটি সেতু সহ চারটি সেতু নির্মান করা হলে রাউজান, ফটিকছড়ি, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম নগরীর মোহরা এলাকার হাজার হাজার মানুষ তার সুফল ভোগ করবে । চারটি সেতু নির্মান কাজের জন্য পুর্বে সয়েল টেষ্ট করা হয়েছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*