রাউজানে গলা কেটে হত্যা, খুনিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

শফিউল আলম, রাউজানবার্তা :

রাউজানের উরকিরচরে গলা কেটে মুক্তিযোদ্বা নুরুল আমি চৌধুরীর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত হত্যাাকারী সোহরাবকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গত ৯ ফেব্রুযারী রোববার দিবাগত রাত ১০ টার সময়ে রাউজানের নোয়াপাড়া পথের হাট থেকে মুক্তিযোদ্বা নুরুল
আজিম চৌধুরীর হত্যাকান্ডের মুলহোতা শেখ সোহরাব হোসেন (২৬) কে আটক করে র‌্যাব ।

মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরীকে হত্যার মুল হোতা সোহরাবকে আটক করার পর ১০ ফেব্রƒযারী সোমবার দুপুর ১২ টার সময়ে চট্রগ্রাম নগরীর চান্দঁগাও র‌্যাবের ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন হয় ।

সংবাদ সম্মেলনে হত্যকান্ডের ঘটনার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন র‌্যাবের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মোঃ তারেক আজিজ । সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মোঃ তারেক আজিজ বলেন, হত্যাকান্ডের মুল হোতা সোহরাব দীর্ঘদিন ধরে মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরীর উপর ক্ষিপ্ত ছিল । ক্ষোভ থেকে নৃশংস হয়ে নুরুল আজিমকে হত্যা করে সোহরাব ।

সোহরাবের ক্ষোভের কারন সর্ম্পকে সোহরাব র‌্যাবকে জানায় মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরী সব সময় সোহরাবকে টিটকারী ও মশকরা করতো । সোহরাবকে মশকরা করে বলতো বাপের জম্ম ভাল দেখদেস? তুই কোন কাজ কর্ম করসনা, তোর কোনো উর্পাজন নেই এস বলতো । গত পাচঁ মাস ধরে নুরুল আজিম চৌধুরীকে হত্যার পরিকল্পনা করছিলো বলে র‌্যাবে জানায় সোহরাব।

র‌্যাবের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মোঃ তারেক আজিজ আরো বলেন, নুরুল আজিমকে হত্যা করার জন্য ১ হাজার টাকা দিয়ে কর্মকারের দোকান থেকে একটি কিরিচ কিনে নেয় সোহরাব । সোহরাব তার ক্রয় করা কিরিচ দিয়ে নৃশংস ভাবে মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরীকে র্নশংসভাবে হত্যা করে। হত্যাকান্ডের পর কিরিচ কর্মকারের দোকানে ফেরৎ দেয় । হত্যাকান্ডের মুল হোতা সোহরাবের দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুয়ায়ী কর্মকারের দোকান থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত কিরিচ ও তার বসতঘর থেকে হত্যাকান্ডোর দিন সোহরাবের পরিহিত রক্তমাখা জামা কাপড় উদ্বার করা হয় । সোহরাবের দেওয়া
তথ্যগুলো যাছাই পুর্বক তদন্ত করে হত্যাকান্ডের সাথে আর কেউ জড়িত রয়েছে কিনা তা তদন্ত করছে র‌্যাব ।

উল্লেখ্য গত ৮ ফেব্রয়ারী শনিবার রাউজানের উরকিরচর হারপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনের ডোবা থেকে মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরীর গলা
কাটা লাশ উদ্বার করে পুলিশ । মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরী হাটহাজারী উপজেলার গড়দুয়াড়া ইউনিয়নের গুড়ামিয়া চৌধুরী বাড়ির মৃত আবদুল হামিদের পুত্র । মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরী উরকির চর হারপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে
দোকান নিয়ে বই, খাতা, কলম সহ ষ্টেশনারী দ্রব্য বিক্রয় করতো ।

হত্যাকান্ডের ঘটনার পর নিহত মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরীএর ভাই হাটাহাজারী উপজেলার গড়দুয়ারাি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনাম চৌধুরী বাদী হয়ে রাউজান থানায় অপ্সাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করে মামলা করে । মুক্তিযোদ্বা নুরুল আজিম চৌধুরী হত্যান্ডের ঘটনার সাথে জড়িত শেখ সোহরাব হোসেন সাদ্দিচ রাউজানের উরকিরচর ইউনিয়নের শেখ মোহাম্মদ বাড়ীর মরহুম সোনা মিয়ার পুত্র ।

প্রসঙ্গত, শনিবার ৮েফব্রুয়ারী রাউজানে শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করা হয়
মুক্তিযোদ্ধ নুরুল আজম চৌধুরীক। নুরুল আজম দীর্ঘদিন পুলশিরে উপ-পরিদর্শক পদে
চাকরি করনে। ৫৭ বছর বয়সে  ২০০৫ সালে অবসরে যান তিনি। এরপর থকেে রাউজানে দোকান করতেন তিনি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*