রাউজানে বাড়ীর ছাদে ও সড়কের পাশে ফলের বাগান

রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় ফসলী জমি, টিলাভুমি, সরকারী অফিসের অঙ্গিনায়, থানা ভবনের পাশে. ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের আঙ্গিনায়, ছাদে পাকা ঘরের ছাদে ও সড়কের পাশে ফলের বাগান

শফিউল আলম, রাউজানবার্তা : 

রাউজান উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সড়কের পাশে ও ফসলী জমিতে, টিলাভুমিতে, উপজেলা পরিষদের ভবনের আঙ্গিনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের আঙ্গিনায়, রাউজান থানা ভবনের আঙ্গিনায় ও রাউজান থানার সামনের পুকুরের পাড়ে, পুর্ব গুজরা পুলিশ তদন্ত ফাাড়ী ভবনের আঙ্গিনায়, শিক্ষা প্রতিষ্টান ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের আঙ্গিনায়, সাংসদ এবি এম ফজলে করিম চৌধুরীর গহিরাস্থ বাড়ী ও বাগান বাড়ীর আঙ্গিনায় ও ইউনিয়ন পরিষদের ভবনের আঙ্গিনায় ও ছাদে, রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় পাকা ঘরের ছাদে আমপ্রলী, হাড়ী ভাঙ্গা,হিমসাগর,ফজলী, লেংরা সহ বিভন্ন প্রজাতির আম, কমলা, মাল্টা, চেরী, পেপেঁ, সাবেদা, জলপাই, আমলকী,লিচু, চায়না লিচু,  জাম্বুরা সহ দেশী বিদেশী ফলের বাগান গড়ে উঠেছে ।

রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি গত  রাউজানে একঘন্টায় ৪লাখ ৮০ হাজার ফলজ গাছের চারা রোপন করে ।

৮লাখ  ৮০ হাজার ফলজ গাছের চারা নরকারী বেসরকারী প্রতিষ্টান, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্টানের আঙ্গিনায় ও সড়কের দু পাশে রোপন করা হয়েছে । রোপন করা ফলজ গাছের চারার মধ্যে আম গাছের চারায় আমের মুকুল এসেছে প্রচুর । এছাড়া ও রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় এলঅকার লোকজন কেই শখের ভশিভুত হয়ে কেউ ফল বিক্রয় করে আয় করার লক্ষ্যে বিভিন্ প্রজাতির ফল বাগান গড়েছে ।

রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়নের জানিপথর এলাকায় সেকান্দর, বৃকবানুপর এলাকায় উপজেলা চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুল, হলদিয়া রাবার বাগান এলাকায় মাহবুল আলম, এস এম বাবর, হলদিয়া এলাকায় ননাইয়্যা বৈদ্য, রাউজান পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের প্রবাসী নুরুল হুদা চৌধুরী, বড়বাড়ী পাড়ায় আজিজ, সুলতানপুর জানালী হাট এলাকায় প্রবাসী জামাল উদ্দিন, সুলতানপুর কাজী পাড়া এলাকায় সালাউদ্দিন, রাউজান পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের রাউজান থানা রোডের পাশে ওসমান, রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্ল্রাহ রাউজান থানা ভবনের আঙ্গিনায় ও থানার পুকুরের পাড়ে, রাউজান পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের ফকির তকিয়া এলাকায় সাংসদ ফজলে করিম চৌধুরীর বাগান বাড়ীতে, রাউজান পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের পশ্চিম রাউজান চারাবটতল এলাকায় জসিম উদ্দিন, দিদারুল আলম, কামাল উদ্দিন, রাউজানের গহিরা দলই নগরের দিদারুল আলম, রাউজানের নাতোয়ান বাগিচায় কবির আহম্মদ, রাউজানের কদলপুরে চেয়ারম্যান তসলিম উদ্দিন চৌধুরী, রাউজানের দেওয়ানপুরে আমিনুল ইসলাম, রাউজানের বিনাজুরীর কাগতিয়ায় রাজিব চৌধুরী, পুলক বড়–য়া, ডাবুয়ার ফুল টিলার আশরফ আলী, আলাউদ্দিন, গশ্চির নুর মোরশেদ, উরকিরচরের সালাউদ্দিন মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তোলেছে । 

রাউজানের পুর্ব রাউজান জয়নগর বড়ুয়া পাড়া এলাকার বাসিন্দ্বা দুবাই ফেরৎ প্রবাসী প্রেমতোষ বড়ুয়া রাউজান জয়নগর বড়ুয়া পাড়া এলকায় ২ একর জমিতে ৮শত মাল্টা ফলের চারা, পেপেঁ, লিচু, অমপ্রলী, হাড়িভাঙ্গা জাতের আম গাছের বাগান গড়ে তোলেছে । প্রবাস ফেরৎ প্রেমতোষ বড়ুয়া জানান দুই একর জমিতে ফলের বাগান গড়তে তার খরচ হয়েছে ৬লাখ টাকা । বৌদ্ব সাবির্ক গ্রাম উন্নয়ন সমিতি থেকে দেড়লাখ টাকা ঋন নিতে হয়েছে ফলের বাগান গড়তে প্রেমতোষ বড়ুয়ার । ঋণের টাকা ফেরৎ দিয়ে প্রেমতোষ বড়ুয়া তার স্ত্রী সহ প্রতিদিন ফলের বাগানের পরিচর্যা করছে ।

প্রেমতোষ বড়ুয়া এগ্রোভেট ফার্ম নাম দিয়েছে তার ফলের বাগানের । প্রেমতোষ বড়ুয়া বলেন ১৯৮৮ সালে এইস এইস সি পাশ করে । ১৯৯০ সালে দুবাইতে জিবিকার তাগিদে পাড়ি জমায় । ২০০৯ সালে দুবাই থেকে দেশে এসে তার জমিতে চাষাবাদ করে । বাড়ীর অদুরে ফসলী জমিতে গোলাপ ফুলের বাগান গড়ে তোলে । পরে গোলপ ফুলের বাগানের চাষবাদ ছেড়ে দিয়ে চাষাবাদের পাশাপশি ফসলী জমিতে বাউকুল বাগান  ও ডেইরী ফার্ম গড়ে তোলে । অসুস্থতার কারনে বাউকুল ও ডেইরী ফার্ম ছেড়ে দিয়ে গত দেড় বৎসর পুর্বে রাউজান উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের পরামশে দুই একর জমিতে মাল্টা ফলের বাগান গড়ে তোলে ।

প্রেমতোষ বড়ুয়ার মাল্টা গাছে মাল্টা ধরেছে । প্রেমতোষ বড়ুয়া বলেন মাল্টা বাগান গড়ে তোলার জন্য রাউজান উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সকল প্রকার সহায়তা প্রদান ও একটি সেচ পাম্প ও পাইপ, একটি হ্যান্ড পাওয়ার পাম্প সহ পাইপ দিয়েছে । প্রেমতোষ বড়ুয়ার এক কন্যা সন্তান হৈমন্তি বড়ুয়াকে বিবাহ দিয়েছে। দুই ছেলে সন্তান সরৎ বড়ুয়া রাউজান সুরেশ বিদ্যায়তনের দশম শ্রেণীতে শ্রাবণ বড়ুয়া একই বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীতে লেখপাড়া করছে ।

রাউজান থানা রোডের পাশে ঘরের ছাদের উপর মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তোলা ওসমান জানান ছাদে গড়ে তোলা ফলের বাগানের উৎপাদিত ফল পরিবারের সকলের খাওয়ার পর আত্বিয় স্বজনদের বাড়িতে পাঠিয়ে থাকি ।

রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজা বলেন, আমি আমার অফিসের আঙ্গিনায় ও বাসার আঙ্গিনায় মিশ্র ফলের বাগান করেছি । রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তোলায় বাগানের গাছ থেকে উৎপাদিত ফল রাউজানের মানুষ খেতে পারবে । রাউজানের মানুষকে বাজার থেকে বিষযুক্ত ফল খেতে হবেনা । 

রাউজান উপজেলা কৃষি অফিসার বেলায়েত হোসেন জানান রাউজানের বিাভন্ন এলাকায় সড়কের পাশে, সরকারী বেসকারী প্রতিষ্টান, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের আঙ্গিণায় ইউনিয়ন পরিষদের ভবনের আঙ্গিনায় ও ছাদে শিক্ষা প্রতিষ্টানের আঙ্গিনায় এলাকার লোকজনের গড়ে তেলা ফসলী জমি ও টিলা ভুমি ঘরের ছাদে গড়ে তোলা মিশ্র ফলের বাগান থেকে উৎপাদিত ফল রাউজানের মানুষের ফলের চাহিদা পুরন হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*