শফিউল আলম, রাউজানবার্তা :

রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের জমি দখল করে ঘরবাড়ী নির্মান জবর দখল করে নেওয়া জমি উদ্বারে অভিযানে নেমেছে রাউজান উপজেলা প্রশাশন। 

রাউজান উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের ৪৫ শতক জমির মধ্যে ১২শতক জমিতে হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র ভবন রয়েছে। 

অবশিষ্ট ৩২শতক জমি দখল করে হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের পাশে ফরিদ মিয়া তার ভাই সীমানা প্রাচীর নির্মান করে ঘর বাড়ী নির্মান করেছে। 

রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের বাইরে সীমানা প্রাচীর নির্মান করার জন্য বরাদ্ব দেওয়া হলে সীমানা প্রাচীর নির্মান করার পুর্বে রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের জমি জবর দখলের চিত্র ভেসে উঠে। 

বিষয়টি নিয়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ ও উপজেলা সহকারী ভুমি আবদুল্লাহ আল মাহমুদ ভুইয়া কে অবগত করা হলে ১২ সেপ্টেম্বর শনিবার দুপুরে রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুলকে নিয়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ ও উপজেলা সহকারী ভুমি আবদুল্লাহ আল মাহমুদ ভুইয়া হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। 

এসময়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের পাশে বাড়ীর মালিক ফরিদ মিয়ার পরিবারের সদস্য ও অপর পাশে জমির মালিক ভাগ্যধন ভট্টচার্য্যকে ডেকে তাদের দখলে থাকা জমির দলিল পত্র রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগকে জমা দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন। 

আগামী এক সাপ্তাহের মধ্যে ফরিদ মিয়ার ও ভাগ্যধন ভট্টচার্য্যরে জমির মালিকানা দলিল পত্র যাছাই করে রাউজান উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার দিয়ে জমি পরিমাপ করে হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের জমি কার দখলে রয়েছে তা চিহ্নিত করে অবৈধ দখলে থাকা জমি উদ্বার করা হবে বলে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ জানান। 

হলদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র পরিদর্শন কালে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার নিক্সন চৌধুরী, রাউজান উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবদুল কুদ্দুস, হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, রাউজান উপজেলা প্রকৌশল বিভাগের উপ সহকারী প্রকৌশলী ফরিদ, আওয়ামী লীগ নেতা এস এম বাবর, রুনু ভট্টচায ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *